প্রিমিয়ার লিগে ইয়াসিনের অনন্য রেকর্ড

টিবিটি খেলাধুলা: ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ (ডিপিএল) এর চলতি আসরের দশম রাউন্ডে রেকর্ড গড়েছেন গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্সের পেসার ইয়াসিন আরাফাত মিশু। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ৮ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব গড়েছেন এই ১৯ বছর বয়সী পেসার। চোটের কারণে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলতে না পারলেও প্রিমিয়ার লিগে প্রথম থেকে বল হাতে উজ্জ্বল ছিলেন ইয়াসিন।

মূলত আবাহনী লিমিটেডকে একাই ধসিয়ে দিয়েছেন এই পেসার। ফতুল্লার খান উসমান আলী স্টেডিয়ামে গাজী গ্রুপ আগে বল করতে নেমে ইনিংসের প্রথম শিকার বানান সাইফ হাসানকে। একই ওভারে কোন রান করতে দিয়েই আউট করেন নাজমুল হোসেন শান্তকে। ইয়াসিনের তৃতীয় শিকার হন আবাহনীর অধিনায়ক নাসির হোসেন।

তিনিও ব্যক্তিগত রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফিরেন। একই ওভারে মোসাদ্দেক হোসেনকে কোন রান করতে না দিয়ে সাজঘরে ফিরান ইয়াসিন। দলীয় ১২ রানে আবাহনীর পাঁচ উইকেট পড়ে গেলে মোহাম্মদ মিঠুন ও মানন শর্মার ৫৩ রানের জুটিতে কিছুটা কিনারা খুঁজে পায়নি দলটি। মিঠুন ৪০ রানে আউট হয়ে গেলে দলের হাল ধরার দায়িত্ব নেন মানন।

নিজের পঞ্চম উইকেট শিকার করেন মাশরাফিকে আউট করে। দলীয় ৯৩ রানে তাঁকে ফিরিয়ে দ্বিতীয় পঞ্চম উইকেট পান ইয়াসিন মিশু। পরের বলেই কোন রান করতে না দিয়ে আউট করেন সানজামুলকে। একই ওভারে বিনা রানে আউট হন আরিফুল ইসলাম সবুজ। নিজের ৮ম উইকেটটি পান মানন শর্মার উইকেটের মাধ্যমে। ব্যক্তিগত ৪৬ করে নাইম হাসানের কাছে ক্যাচ তুলে দেন তিনি।

ইয়াসিন নেন লিস্ট ‘এ’ সেরা ৪০ রান দিয়ে ৮ উইকেট। কোন রান না করেই আউট হয়েছেন পাঁচ ব্যাটসম্যান। সবার উইকেটই পেয়েছেন এই ১৯ বছর বয়সী পেসার। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১২১ বল বাকি থাকতেই ৮ উইকেটের জয় তুলে নেয় গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স। গাজী গ্রুপের হয়ে ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ৫২ রান করে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক জহুরুল ইসলাম ও ৩৯ করে অপরাজিত থাকেন ফাহাদ।

ইয়াসিনের এই ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের কল্যাণে রেকর্ড ভাঙেন আব্দুর রাজ্জাকের। ২০০৩ সালে জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলের বিপক্ষে ২৫ রান ৭ উইকেট নিয়েছিলেন রাজ্জাক। ১৫ বছর পর সেই রেকর্ড ভাঙেন ইয়াসিন। এছাড়াও লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে সেরা বোলিং ফিগার বয়েসের। ১৯৭১ সালে ২৬ রান দিয়ে ৮ উইকেট নিয়েছেন বয়েস এবং ১১তম বোলার হিসেবে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ৮ উইকেট নেন বাংলাদেশি এই তরুণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here