শ্রেণিকক্ষে পড়া না পারায় শিক্ষকের বেত্রাঘাতে শিক্ষার্থী হাসপাতালে দায়ী শিক্ষককে অব্যহতি

গৌতম চন্দ্র হালদার,কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।। ক্লাশে পড়া দিতে না পারায় বেধড়ক বেত্রাঘাতে গুরুতর অবস্থায় কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী শাহীন আলম। কুয়াকাটা বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এ শিক্ষার্থীকে সোমবার দেড়টার দিকে ক্লাশরুমে বেত্রাঘাত করা হয়। শিক্ষার্থীর অভিযোগ, বিদ্যালয়ের প্যারা শিক্ষক হাসান আল আউয়াল তাকে বেত্রাঘাত করেন।

একই কারণে আরও কয়েকজন শিক্ষার্থীকে একই সময় বেত্রাঘাত করা হয় বলে আহত শাহীন আলমের দাবি। অনেকটা হতবাক হয়ে তাৎক্ষণিক বিমর্ষ হয়ে পড়ে শাহীন আলম।

হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, পুরুষ ওয়ার্ডের ছয় নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছে আহত শাহীন। সোমবার সন্ধ্যায় হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হয়েছে। শাহীনের বাম বাহুসহ পিঠে বেত্রাঘাতের অন্তত ১২টি ছোপ ছোপ লাল ক্ষতচিহ্ন ফুটে আছে। এপাশ ওপাশ করতেও ককিয়ে ওঠছে।

শাহীন জানায়, গত সোমবার, ৭ মে শিক্ষক হাসান আল আউয়াল ইংরেজী বিষয়ের নির্দিষ্ট পড়া ১৪ মে দিতে না পারায় বেধড়ক বেত্রাঘাত করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ খলিলুর রহমান জানান, বিষয়টি দুঃখজনক। তাৎক্ষণিক ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত নিয়ে প্যারা (অতিরিক্ত) শিক্ষক হাসান আল আউয়ালকে দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থী শাহীন আলমের চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ শহীদ হোসেন জানান, তিনি বিষয়টি জেনে পদক্ষেপ নিচ্ছেন।